Tag archives for বিয়ে

বিয়ের পর

Bookmark

Share

স্ত্রীঃ বিয়ের আগে কি তোমার কোন বান্ধবী ছিল?
স্বামীঃ না, তুমিই প্রথম।
স্ত্রীঃ কাল যে মেয়েটির সঙ্গে খুব হেসে হেসে কথা বলছিলে, ওই মেয়েটি কে?
স্বামীঃ ওর সঙ্গে আমার পরিচয় হয়েছে বিয়ের পর…!

বিয়ের পঞ্চাশ বছর

Bookmark

Share

বিয়ের পঞ্চাশ বছর পুর্তিতে স্বামী-স্ত্রী কথা বলছে।
– তোমার মনে আছে বিয়ের প্রথম দিন তুমি কী করেছিলে?
– তোমার গাল কামড়ে দিয়েছিলাম।
– সে দিন কি আর ফিরে পাব? 🙁
– দাঁড়াও, বাথরুম থেকে দাঁতটা নিয়ে আসি!

বিয়ের আসরে

Bookmark

Share

এক বিয়ের আসরেঃ
– দেখুন, এই মেয়েটিকে কোলে পিঠে করে মানুষ করেছি আর আজ তার বিয়ে হচ্ছে।
– কনে আপনার মেয়ে বুঝি?
– আরে না, আমার প্রাইভেট সেক্টেটারি ছিল।

দাওয়াত না দিয়ে দায়িত্বহীনতা

Bookmark

Share

গোপাল খেতে খুব পছন্দ করত। তো একবার বাড়ি ফেরার পথে দেখে এক বাড়িতে বিয়ে হচ্ছে। খাওয়া দাওয়ার আয়োজন চলছে মন্দ না। গোপাল চট করে সেখানে ঢুকে পাত পেতে বসে পড়ল। খেতে শুরু করল। এমন সময় বিয়ে বাড়িত লোকজন খেয়াল করল এ লোকটা তো অচেনা। এ তো দাওয়াতি নয়! এ কোথ্থেকে এল? তখন একজন তাকে চেপে ধরল –
– এই দাদা, আপনি তো আমাদের দাওয়াতি নন, খেতে বসলেন যে বড়?
গোপাল ভাঁড়কে বিন্দুমাত্র বিচলিত মনে হল না। সে দিব্যি খেতেই থাকল। এবং খেতে খেতেই উত্তর দিল –
– দেখুন, আপনারা আমাকে দাওয়াত না দিয়ে দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিতে পারেন। কিন্তু আপনাদের পড়শি হিসেবে আমি তো আর দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিতে পারি না। কী বলেন, তাই নিজেই চলে এসেছি!
বলে গোপাল ভাঁড় ঠিক মনোযোগ দিয়ে দিব্যি খেতে শুরু করল। তখন উত্তর শুনে সবাই চমৎকৃত! উল্টো তখন সবাই তাকে তোষামোদ করে খাওয়াতে লাগল।

৩০ বছর পর ডিভোর্স

Bookmark

Share

উকিলঃ বিয়ের ৩০ বছর পর ডিভোর্স চাইছেন লাভ কী, আর কতদিনই বা বাঁচবেন?
লোকঃ বাকি জীবনটা একটু শান্তিতে থাকতে চাই যে!

দাদার রেখে যাওয়া সম্পত্তি

Bookmark

Share

ক্লাইভঃ তুমি কি সিন্থিয়াকে বিয়ে করছ শুধুমাত্র তার দাদার রেখে যাওয়া সম্পত্তির কারণে?
টনিঃ অবশ্যই না। অন্য যে কেউ রেখে গেলেও আমি ওকে বিয়ে করতাম।

বিয়ের আসরে

Bookmark

Share

বিয়ের আসরে প্রচুর উপহার সামগ্রী পেয়েছে জন ও সোনিয়া। তার মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় গিফ্ট হচ্ছে সোনিয়ার বাবার পক্ষ থেকে ৫০ হাজার ডলারের ব্যাঙ্ক চেক। একসময় জন সোনিয়াকে জিজ্ঞেস করল,
– অনেক্ষণ থেকেই লক্ষ্য করছি একটা লোক আমার দিকে তাকিয়ে শুধু মিটিমিটি হাসছে। লোকটাকে চেন?
– হ্যাঁ, উনি আমার বাবার ব্যাঙ্কের ম্যানেজার।

লিভ টুগেদার

Bookmark

Share

একসাথে ত্রিশ বছর লিভ টুগেদারের পর এক সকালে মনিকা হ্যারিকে বলল,
– চল, আমরা বিয়ে করি।
– কিন্তু এ বয়সে আমাদের বিয়ে করবে কে?

নিশ্চিত আয়

Bookmark

Share

– আমার মেয়েকে যে বিয়ে করতে চাও, ওকে খাওয়াবে-পরাবে কী? তোমার মাসিক আয়টা কত শুনি?
– নিশ্চিত আয় মসে হাজার খানিক, আর এদিক ওদিক করে…
– হাজার খানেক! জানো আমার মেয়ে আমার কাছ থেকে মাসে হাত খরচই পায় এক হাজার টাকা!
– নিশ্চিত আয় বলতে আমি ওটাই মিন করছি।

আজকের এই সুখের দিনে

Bookmark

Share

– তোমার আজকের এই সুখের দিনের জন্য অভিনন্দন জানাই।
– ব্যাপার কী বুঝলাম না তো, আমার বিয়ে তো আজ নয়, কাল।
– সে জন্যেই তো তোমার জীবনের শেষ সুখের দিনের জন্য অভিনন্দন জানাচ্ছি।