Tag archives for বাঘ

বাঘটা কোন দিকে?

Bookmark

Share

এক লোককে দেখা গেল ঊর্ধ্বশ্বাসে দৌড়াচ্ছে আর বলছে, ‘ওদিকে যাবেন না… ওদিকে যাবেন না…’
– কেন?
– একটা বাঘ খাঁচা থেকে বের হয়ে এসেছে।
– বাঘটা কোনদিকে ?
– আপনার কি ধারনা আমি বাঘটাকে তাড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছি?

তিন জন লোক

Bookmark

Share

তিন জন লোক বাড়ি ফিরছলেন। গহীন বনের মধ্যে দিয়ে আসার সময় হঠাৎ তাদের গাড়িটা খারাপ হয়ে গেল। রাত্রি বেলা বন থেকে বের হওয়ার কোন উপায় নেই পায়ে হাঁটা ছাড়া। তিন জনের একজন ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে গাড়ির ড্রাইভারকে জিজ্ঞেস করল, ভাই, এই বন কতটা লম্বা?
ড্রাইভার বলল, বাঘে তাড়া করলে পঁচিশ কিলোমিটার, নয়তো চল্লিশ কিলোমিটার তো হবেই।

বাঘ না বিড়াল

Bookmark

Share

গভীর জঙ্গলে বিভিন্ন দেশের বিড়ালেরা এসে জমায়েত হয়েছে। আন্তর্জাতিক বিড়াল লড়াই প্রতিযোগিতা হবে। লড়াই শুরু হয়ে গেল। একে একে বিভিন্ন দেশ হারছে। কিন্তু বাংলাদেশের বিড়ালকে কেউ হারাতে পারছে না। আর কী আশ্চর্য! বাংলাদেশের বিড়াল শেষ পর্যন্ত সেরা বিড়াল হিসেবে নির্বাচিত হয়ে গেল। শেষে অন্য দেশের সব বিড়ালরা তাকে ঘিরে ধরল, ‘কোথায় পেয়েছে সে এই প্রচণ্ড লড়াই করার ক্ষমতা! এরকম একটি দরিদ্র দেশের বিড়াল হয়েও?‌’ বাংলাদেশের বিড়ালটি তখন একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলল, ‘আমি আসলে বাঘ। না খেতে খেতে বিড়ালের মত হয়ে গেছি।’

ঘাটটা আমার

Bookmark

Share

– খবরদার, মুখ সামলে কথা বলেন, জানেন আমি কে? আমার ভয়ে বাঘে গরুতে একঘাটে পানি খায়।
– আর আমি কে জানেন? ঐ যে ঘাটটায় বাঘ-গরু পানি খায় ঐ ঘাটটা আমার।

মা বাঘ ও বাচ্চা বাঘ

Bookmark

Share

মা বাঘঃ তোমরা এতক্ষণ কোথায় ছিলে?
বাচ্চা বাঘঃ একটা মানুষ আমাদের দেখে গাছে উঠেছিল। আমরা তার নিচে ঘুর ঘুর করছিলাম।
মা বাঘঃ তোমাদের না বলেছি খাবার নিয়ে কখনো খেলবে না!

জুওলজিতে অনার্স

Bookmark

Share

একটি ছেলে জুওলজিতে অনার্স পাস করে দীর্ঘদিন বেকার বসে আছে। একটি সে চিড়িয়াখানায় কর্তৃপক্ষকে গিয়ে ধরল তাকে একটা চাকরি দেওয়ার জন্য। কর্তৃপক্ষ শেষ পর্যন্ত রাজি হলেন। চাকরিটা আর কিছুই না – চিড়িয়াখানায় একটা বড় বাঘ মরে গেছে, তার চামড়াটা পড়ে ঘোরাঘুরি করতে হবে। যাতে মনে হয় খাঁচায় একটা জ্যান্ত বাঘ রয়েছে। মাইনে মাসে তিন হাজাত টাকা। ছেলেটি রাজি হয়ে এ কাজে যোগ দিল।

ছেলেটির খাঁচার সাথেই ছিল একটি সিংহের খাঁচা। দুই খাঁচার মাঝামাঝি ছিল একটা দরজা। ছেলেটি সবসময় ভয়ে সেই দরজা বন্ধ রাখত। একদিন লাফ ঝাঁপ করতে করতে সেই দরজার উপরে গিয়ে পড়তেই সেটা ক্যাঁচ ক্যাঁচ করে খুলে গেল। সামনেই পশুরাজ সিংহ – ছেলেটি আতঙ্কে কাঠ হয়ে হাত জোড় করে চোখ দুটি বন্ধ করে ফেলল। কিন্তু কয়েক মিনিট কেটে যাওয়ার পরও পশুরাজ যখন তাকে আক্রমণ করল না, তখন ভয়ে ভয়ে চোখ মেলে সে দেখতে পেল – সিংহও হাত জোড় করে চোখ বুজে আছে।

স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে ছেলেটি বলল, ও তা হলে আপনিও জুওলজিতে অনার্স!

চিতা ও ইঁদুর

Bookmark

Share

জঙ্গলে এক চিতা বিড়ি খাচ্ছিল তখন এক ইঁদুর আসলো আর বলেঃ “ভাই নেশা ছাইড়া দেও, আমার সাথে আস দেখ জঙ্গল কত সুন্দর” চিতা ইদুরের সাথে যাইতে লাগলো সামনে হাতি ড্রাগ নিচ্ছিল ইঁদুর হাতিকেও এক ই কথা বলল এর পর হাতিও ওদের সাথে চলতে শুরু করলো কিছুদুর পর তারা দেখল বাঘ হুইস্কি খাচ্ছে ইঁদুর যখন তাকেও এক ই কথা বলল সাথে সাথে বাঘ হুইস্কির গ্লাস রেখে ইদুরকে দিল কইসা একটা থাপড়!! হাতিঃবেচারাকে কেন মারতাছ??
বাঘঃএই শালা কালকেও গাজা খাইয়া আমারে জঙ্গলে ৩ ঘণ্টা ঘুরাইছিল

প্রাণি ও সঙ্গীতপ্রীতি

Bookmark

Share

প্রাণীরা সঙ্গীত পছন্দ করে এই ধারনাকে প্রমাণ করতে এক বিজ্ঞানী ভায়োলিন নিয়ে ঢুলকেন এক গভীর জঙ্গলে। তারপর সুর তুললেন ভায়েলিনে। দেখা গেল একে একে জেব্রা, জিরাফ, বানর গণ্ডার, বাঘ, ভাল্লুক সবাই এসে ভীড় করল বিজ্ঞানীর চারপাশে এবং মুগ্ধ হয়ে শুনতে লাগলো তার সুমধুর সুর। কিন্তু হঠাৎ সিংহ এসে খপ করে বিজ্ঞানীর মুন্ডু খেয়ে ফেলল। অন্য প্রাণিরা হা হা করে উঠল
সবাই বলে উঠলো,  ‘পশুরাজ একি করলেন এত সুন্দর সুর তুলছিলেন উনি?’
পশুরাজ কানে নখ ঢুকিয়ে খোচাতে খোচাতে বললেন, ‘কী বললে? আমি আবার কানে কম শুনি জোড়ে বল তোমরা।’

আফ্রিকার জঙ্গলে

Bookmark

Share

এক শিকারি বন্ধুদের আড্ডায়
বসে বলছে, ‘জানিস, সেবার আফ্রিকার
জঙ্গলে গিয়ে আমি কতগুলো রয়েল
বেঙ্গল টাইগার মেরেছি?’
বন্ধুরা ভ্রু কুঁচকে বলে, ‘আফ্রিকার
জঙ্গলে তো রয়েল বেঙ্গল টাইগারই
নেই! তুই মারবি কোথা থেকে?’
শিকারি: আহ্! সব যদি আমি মেরেই
ফেলি, তাহলে থাকবে কোথা থেকে?!

বাঘ

Bookmark

Share

এক ডাক্তার তার এক ফরেষ্টার বন্ধুর জঙ্গলের বাংলায় বেড়াতে এসেছেন। এক সন্ধ্যায় দুজনেই মদে চুর হয়ে গুলতানি করছেন।
ফরেষ্টার বন্ধুটি বললেনঃ  একবার আমার সামনে এক বাঘ এসে পড়ল। আমার মাথার টেবিলের উপর রাখা এক মগ পানি তার গায়ে ছুড়ে দিলাম। আর তাতেই সে ভয়ে পালালো।
শুনে ডাক্তার বললেনঃ এবারে পেলাম একটা রহস্যের সমাধান। আরে হয়েছিল কি, গতমাসেই আমার মতিঝিলের চেম্বারে ভোরবেলা একটা বাঘ এসেছিল সর্দির ওষুধ কিনতে। তার গায়ে স্টেথোস্কোপ লাগানোর সময় দেখছিলাম তার লোমগুলো পানিতে ভর্তি।