Tag archives for ফেসবুক

প্রপোজ

Bookmark

Share

প্রপোজ করার সবচেয়ে নতুন তরিকা…
“তুমি কি আমার ফেসবুকের পাশওয়ার্ড হবে??”

দুটি মজার কিন্তু সত্য ঘটনা

Bookmark

Share

১ম ঘটনাঃ আমরা কেউই দেখতে আমাদের জাতীয় পরিচয়পত্রের ছবির মত কুৎসিত নই!!
২য় ঘটনাঃ আমরা কেউই দেখতে আমাদের ফেসবুকে দেয়া ছবিগুলোর মত এতো সুন্দর/সুন্দরী নই।।

ফেসবুকে মা ও ছেলের কথপোকথন

Bookmark

Share

মাঃ হোমওয়ার্ক শেষ করেছ?
মাঃ ভাত খেয়ে থালা বাসন ধুয়ে রাখবে কিন্তু।
মাঃ দরজা জানালা গুলো বন্ধ করেছ?
মাঃ জামাকাপড়গুলো ইস্ত্রী করে রাখো। কাল খুব সকালে স্কুলে যেতে হবে।
মাঃ শোন, তোমার বাবা আর আমি ঠিক করেছি, তোমাকে একটা ল্যাপটপ কিনে দেব। 
ছেলেঃ সত্যি?
মাঃ না। শুধু নিশ্চিৎ হলাম তুমি ওপাশে আছো কি না।

ফেসবুক স্যাটাসের জন্ম

Bookmark

Share

প্রশ্নঃ পৃথিবীর অধিকাংশ ফেসবুক স্যাটাসের জন্ম হয় কীভাবে?
উত্তরঃ সহজ। ctrl+c  এবং ctrl+V থেকে। অর্থাৎ কপি পেস্ট!

স্যাটাসে একজনেরই নাম

Bookmark

Share

আনিকা বলছে সজলকে, ‘ওগো, তুমি একটু পর পর স্যাটাসে আমার নাম লেখো কেন?’
সজলঃ আমার কী দোষ? ফেস বুক একটু পর পর জানতে চায়, ‘হোয়াট ইজ অন ইওর মাইন্ড?’

স্কুল পড়ুয়া ছেলের ফেসবুক

Bookmark

Share

স্কুল পড়ুয়া ছেলেটা তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখল, ‘ক্লাসরুমে বসে বসে ফেসবুকিং করছি। হা হা… কী মজা। ‘
সঙ্গে সঙ্গে ই কমেন্ট লিখলেন শিক্ষক, ‘বেরিয়ে যাও।’
শিক্ষকের কমেন্টে লাইক দিয়ে ছেলেটির মা লিখলেন, ‘আজকে আসো বাসায়। এই অপরাধের শাস্তি স্বরূপ তুমি আজ ঘর ঝাড় দেবে ঘর মুছবে এবং থালা বাসন ধুবে। ।’
মায়ের কমেন্টে লাইক দিল বাসার কাজের লোক।

ফেসবুক

Bookmark

Share

জামিলকে বলল শুভ: তোকে গত কদিন খুব অস্থির দেখাচ্ছিল। আজ বেশ ফুরফুরে লাগছে। ঘটনা কী?
জামিলঃ আর বলিস না দোস্ত, আজ একটা বিরাট কাজ করে ফেললাম। যত নষ্টের গোড়া ওই ফেসবুক। আমি তো ফেসবুক সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। কিছুদিন আগে আমার প্রেমিকা মলি একটা ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলে দিল। সেই থেকে ঝামেলার শুরু। অনেক মেয়ের সঙ্গে পরিচয় হয়, মেয়েরা আমার স্যাটাস আর ছবিতে লাইক দেয়, কমেন্ট লেখে… মলি এসব মানতে পারত না। এসব নিয়ে ওর সঙ্গে প্রতিদিন ঝগড়া হতো। এই অশান্তি আর ভালো লাগে না। আজএর একটা বিহিত করে ফেললাম।
শুভ: যাক, অ্যাকাউন্ট ডিঅ্যাকটিভেট করেছিস তাহলে?
জামিলঃ ডিঅ্যাকটিভেট করব কেন? মলিকে আনফ্রেন্ড করে দিয়েছি।

ফেসবুক – একটি ভয়ঙ্কর নেশা

Bookmark

Share

ফেসবুক একটি ভয়ংকর নেশার নাম ।
সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরনঃ ফেসবুকিং ভবিষ্যাতের জন্য ক্ষতিকর ।
ফেসবুকিং এর ফলে ফ্যান্সার , ফেইডস্ , ফলেরা , ফেনিনজাইটিস , ফ্লেগ , ফলাতংক , ফেঙ্গু , ফিসমানিয়াক সহ আরো অনেক রোগ হতে পারে ।
ফিসমানিয়াকঃ এ জাতীয়
ফেসবুকাররা সাধারন সারা রাত চ্যাট করেন ।
ফলে তাদের ফিসমানিয়াক রোগ হয় ।
ফেঙ্গুঃ এই রোগ বড়ই বিপদজনক । ফেঙ্গু হলে মানুষ মোবাইল ও কম্পিউটার স্ক্রিনথেকে চোখ সরাতেই পারে না… ।
তার চোখদ্বয় লাল হয়ে থাকে ।
এমনকি রাতে ঘুমের সময় প্রলাপ বকে ।
ফলাতংকঃ এ জাতীয় রোগে আক্রান্ত রোগী নিজে ছবি ট্যাগ দেয়
তবে তাকে কেও ট্যাগ দিলে কামড়ে দিতে চায় ।
ফ্লেগঃ অতিরিক্ত পোক , পোক ব্যাকের ফলে ফ্লেগ রোগটি মহামারি হিসেবে দেখা যায় ।
ফেনিনজাইটিসঃ এ রোগ অত্যন্ত ভয়াবহ ।
এ রোগের ফলে ছেলেরা স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলে।
ফলে তাদের মধ্যে মেয়ে হওয়ার প্রবণতা বেশি দেখা দেয় এবং তারা ছ্যাইয়া আইডি খোলে ।
ফলেরাঃ এ রোগে আক্রান্ত মানুষ সারাদিনফেসবুকে পরে থাকে এবং হোমপেইজ রিলোড করতে থাকে নোটিফিকেশনের জন্য । এ রোগ বেশি ভয়াবহ না হলেও অর্থস্বাস্থের জন্য অত্যন্ত মারাত্মক ।
ফ্যান্সারঃ এ জাতীয় রোগে আক্রান্ত রোগীরা কারনে অকারনে ফেসবুকে পরে থাকে।
তারা কাজের বুয়া থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী সবার স্ট্যাটাসে লাইক দেয় ।
এভাবে আস্তে আস্তে তাদের মস্তিস্কে লাইক প্রবণতা এবং লাইক প্রবণতার প্রেক্ষিতে ফেসবুক আসক্তি বেড়ে চলে । আস্তে আস্তে এই রোগ ভবিষ্যত্ ধ্বংস করে দেয় ।
ফেইডস্ : ইহা অত্যন্ত ভয়াবহ রোগ । এ জাতীয় রোগে আক্রান্ত রোগীরা বিপরিত লিঙ্গের একের অধিক মানুষের সাথে ইটিস পিটিস , ছাম্মাক ছাল্লোগিরি করে থাকে । অতিরিক্ত ইটিস পিটিস , ছাম্মাক ছাল্লোগিরির ফলে ফেইডস্ রোগের সৃষ্টি হয় ।
সুতরাং আসুন আমরা ফেসবুক ব্যাবহার কমাই , মোবাইল/পিসি উপর চাপ কমাই 😛
Courtesy: * শর্ত প্রযোজ্য

ফেসবুক আইডি

Bookmark

Share

– বুঝলি এক বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা গেছে ৮৭% তরুণের পিঠে বা কোমড়ে ব্যাথা।
– বাকি ১৩% এর নিশ্চয়ই ফেসবুক আইডি নাই!

ওভারঅ্যাক্টিং

Bookmark

Share

***এক টিনেজ মেয়ের কাছে ফেসবুকে একটা মেসেজ আসছে “হেই তুমি কি আমাকে তোমার ইমেইল দিতে পারবে??
মেয়ের উত্তরঃঅবশ্যই এই যে নেও…
.
.
.
“ [email protected]
.
.
.
..
এর পর অন্যপ্রান্ত থেকে মেসেজ আসলো
.
.

আর আমারটা হচ্ছে “ [email protected]” :P
**প্রেমিক প্রেমিকা কে বলছেঃ ” জান আমি তোমার হাতটা একটু ধরতে পারি??”
প্রেমিকাঃনা!!!
প্রেমিকঃকেন??!!!
প্রেমিকাঃ ” কারন তুমি যখন পরে আমার হাত ছেড়ে দাও আমি সহ্য করতে পারিনা :(
.
.
.
ছেলেঃ….. আমি তো অ্যাকটিং করতাছিলাম, হেয় তো দেখি ওভারঅ্যাকটিং শুরু করছে :P
…………।

 

[This jokes is enlisted in facebook bangla jokes category.]