Tag archives for গাড়ি

পুলিশ ও গাড়ি চালক

Bookmark

Share

পুলিশঃ পেছন থেকে আমি এত ডাকলাম, আপনি গাড়ি থামালেন না কেন?
গাড়ি চালকঃ ওহ, আপনি ডেকেছিলেন! আমি ভেবেছিলাম আমার শ্যালক। ওর গলা আর আপনার গলা একেবারে এক রকম। রাস্তায় দেখতে পেলেই ও ডাকে আর টাকা চায়।

গরম লাগছে

Bookmark

Share

– গাড়ির জানালাগুলো খুলে দাও, গরম লাগছে।
– সে তো আমারও লাগছে। কিন্তু খুললেই তো ওরা জেনে যাবে আমাদের গাড়ি এয়ারকণ্ডিশনড নয়।

দুধ বহনকারী গাড়ি

Bookmark

Share

দুধ বহনকারী গারিটা অন্য গাড়ির সাথে ধাক্কা লেগে উল্টে গেল! দুধে ভেসে গেল রাস্তা। ভিড় জমে গেল।
ভিড়ের মাঝ থেকে অমায়িক চেহারার এক ভদ্রলোক বেরিয়ে এসে দুধ বহনকারীর ড্রাইভারকে বললেন, এ জন্য নিশ্চয়ই তোমার মালিক তোমাকে দায়ী করবে। ক্ষতিপূরণ চাইবে।
– জ্বী।
– তুমি তো গরীব। এত টাকা পাবে কোথায়? এক কাজ কর — এই আমি পাঁচ টাকা দিলাম, এখন অন্যান্যদের কাছ থেকে আরো কিছু কিছু নিলে বোধ হয় হয়ে যাবে তোমার।
কিছুক্ষণের মাঝেই বেশ কিছু টাকা উঠে গেল। ভিড় কমে গেলে ভদ্রলোকটিও চলে গেলেন।
একজন পথিক আপন মনে বলে উঠল, কে এই ভদ্রলোক?
ড্রাইভার বলল, আমার মালিক।

পঞ্চাশ বছর ধরে হাঁটছি

Bookmark

Share

রাস্তার পাশ দিয়ে হাঁটতে থাকা এক লোকের গায়ে লেগে গেল গাড়িটা। গাড়ির ভদ্রলোক রেগে গাড়ি থেকে বেড়িয়ে এলেন।
– দোষ আপনারই, গাড়ি চালানোর অভিজ্ঞতা আমার দশ বছরের।
– অভিজ্ঞতা আমারও কম নয়, আজ পঞ্চাশ বছর ধরে রাস্তায় হাঁটছি।

আমার সাথে গাড়ি আছে

Bookmark

Share

বইয়ের দোকানে ঢুকে এক ভদ্রলোক কিছু বই চাইলেন।
– কীরকম বই চান বলুন, হালকা কিছু?
– না, না, ওজনের ব্যাপারে আপনি মোটেই চিন্তা করবেন না। আমার সাথে গাড়ি আছে।

কৃপণ লোকের গাড়ি কেনা

Bookmark

Share

ভীষণ কৃপণ এক লোক গাড়ি কিনতে গেছে। একটার পর একটা গাড়ি দেখেও তার পছন্দ হচ্ছে না।
– কম পেট্রোলে বেশি মাইল চলবে এমন গাড়ি দেখান।
– ঠিক আছে, তা হলে এটা নিয়ে যান। এটা পেট্রোল ছাড়াই চলে।
– তাই নাকি, কীভাবে?
– এটা চলে অকটেনে।

ষাট মাইল স্পিডে সাইকেল

Bookmark

Share

এক তরুণ সাইকেল চড়ে যাচ্ছিল। হঠাৎ তার সাইকেলের চেইন টা ছিঁড়ে গেল। কী করবে ভাবছে। এমন সময় তার বন্ধু গাড়ি চালিয়ে সেখানে উপস্থিত হল এবং বিপদগ্রস্ত বন্ধুকে সাইকেলে চড়তে বলে সাইকেলটা একটা সরু দড়ি দিয়ে গাড়ির পিছনের দিককার বাম্পারের সঙ্গে বেঁধে নিল। তারপর আস্তে আস্তে গাড়ি চালাতে লাগল।
ইতোমধ্যে একটি আধুনিকা স্পোর্টস কার চালিয়ে তার গাড়িকে ওভারটেক করে চলে গেল। গাড়ি চালক সবকিছু ভুলে মেয়েটিকে পেছনে ফেলার চেষ্টায় স্পিড বাড়িয়ে দিল। সাইকেল আরোহী বন্ধু বিপন্ন হয়ে ঘন ঘন বেল দিতে লাগল। এ অবস্থায় তারা একটি পুলিশ বক্স অতিক্রম করল।
সেই পুলিশ বক্স থেকে একজন পরবর্তী পুলিশ বক্সে ফোন করল, “হাইওয়ে দিয়ে একটি মেয়ে ষাট মাইল স্পিডে একটি স্পোর্টস কার চালিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। ওকে ছেড়ে দাও। তার পেছন-পেছন এক ছোকড়া ষাট মাইল স্পিডে এক টয়োটা চালাচ্ছে – ওকেও ছেড়ে দাও। ওদের পেছনে আরেক ছোকরা ষাট মাইল স্পিডে সাইকেল তো চালাচ্ছেই – তারপরও সাইড দেবার জন্য ঘন ঘন বেল বাজাচ্ছে। ওই ব্যাটাকে ধর।

দুই বেকার

Bookmark

Share

দুই বেকার বন্ধুর দেখা হল রাস্তায়।
– কিরে, তোর খবর কী?
– ভাবছি একটা গাড়ি কিনব। চাকা ঘুরালেই পয়সা।
– তা হলে এত টাকা দিয়ে গাড়ি কেনার দরকার কী? একটা চাকা কিনে বসে বসে ঘুরালেই তো হয়।

চোখ বন্ধ করে গাড়ি চালানো

Bookmark

Share

ভিআইপি রোড দিয়ে সি.এন.জি চালক ঝিমাতে ঝিমাতে গাড়ি চালাচ্ছিল। তাই দেখে পাশ দিয়ে ছুটে যাওয়া প্রধানমন্ত্রী ক্ষেপে গেলেন। চিৎকার করে উঠলেন, ‘ ইমিডিয়েট ওকে অ্যারেস্ট কর’ ।
সঙ্গে সঙ্গে অ্যারেস্ট করা হলো।
– তোমার এত বড় সাহস? VIP রোডে চোখ বন্ধ করে গাড়ি চালাচ্ছ? যদি অ্যাকসিডেন্ট করে মানুষ মার?
– স্যার, আমার একটা প্রশ্ন ছিল।
– তোমার আবার কী প্রশ্ন?
– দেশ আগে না গাড়ি আগে?
– অবশ্যই দেশ।
– তা হলে স্যার, আপনি যদি চোখ বন্ধ করে দেশ চালাতে পারেন… আমার চোখ বন্ধ করে গাড়ি চালাতে সমস্যা কোথায়?

এই জন্যেই এটা নরক

Bookmark

Share

খুব দামি একটা জাগুয়ার স্পোর্টস কার নিয়ে এক লোক স্বর্গের দরজায় গিয়ে হাজির।
– কী ব্যাপার? স্বর্গের দ্বাররক্ষী তাকে আটকালো।
– দেখছ না কী দামি গাড়ি? এই গাড়ি স্বর্গের সড়কে চালিয়ে দেখতে চাই একবার।
– নিয়ম নেই। তুমি নরকে গিয়ে চেষ্টা করে দেখ।
(হতাশ লোকটি এবার গেল নরকের দরজায়। এখানেও দ্বাররক্ষী আটকালো। )
– কী ব্যাপার?
– নরকের রাস্তায় এই গাড়িটা চালাতে চাই।
– সম্ভব নয়।
– কেন?
– কারণ নরকে কোন সড়ক নেই।
– কেন?
– এজন্যই এটা নরক!