Archives for স্বর্গ নরক

মৃত্যুর পর তিন জন

Bookmark

Share

মৃত্যুর পর একত্র হয়েছে তিন জন। একজন পকেটমার, একজন চোরাকারবারি, আর একজন মদ্যপান নিবারণী সংঘের সদস্য।
ফেরেশতা এসে পকেটমার আর চোরাকারবারির জন্য বেহেশতের দরজা খুলে দিল।
কিন্তু মদ্যপান নিবারণী সংঘের সদস্যের জন্য খুলে দিল দোযখের দরজা।
– এ কী? ওই পাপী দু’জনকে বেহেশতে নিলেন আর আমার জন্য দোজখ! কেন?
– ওরা এখানে এসেছে অপার শান্তিলাভের জন্য। কিন্তু বেহেশতে পকেট নেই যে কাটবে; বেচাকেনা নেই যে চোরাকারবার করবে। তাই ওদের জন্য বেহেশত। আর আপনি যেহেতু সারা জীবন মদ্যপান বিরোধী ছিলেন তাই যেখানে মদের ছড়াছড়ি সেখানে তো আপনাকে দিতে পারি না। তাই আপনার জন্য দোযখ।

পরলোক

Bookmark

Share

পরলোকে গিয়ে গল্প করছে দু’জন।
– আচ্ছা, আপনি কী করে মারা গেলেন?
– ঠাণ্ডায়, প্রচণ্ড ঠাণ্ডায়। তা আপনি কীভাবে মারা গেলেন?
– একদিন আমি বাইরে থেকে এসে শুনি আমার বউ অপরিচিত এক লোকের সাথে কথা বলছে। আমার মাথায় রক্ত চড়ে গেল কিন্তু সারাবাড়ি  তন্ন তন্ন করে খুঁজেও লোকটার দেখা পেলাম না। শেষে স্ত্রীর প্রতি অকারণ সন্দেহের জন্য অনুশোচনায় আমি আত্মহত্যা করলাম।
– ইশ! আপনি যদি একটু কষ্ট করে ফ্রিজটা খুলে দেখতেন তা হলে হয়তো আমরা দু’জনেই আজ বেঁচে থাকতাম।

প্ল্যানচেট

Bookmark

Share

ডাকসাইটে এক বিধবা মহিলা প্ল্যানচেটে তাঁর স্বামীর আত্মাকে ডেকে আনল।
– কি গো, ওখানে তোমার দিনকাল কেমন কাটছে?
– চমৎকার।
– এখানে যেমন ছিল, তার চেয়েও অনেক ভালো?
– অ-নে-ক ভালো।
– বল না গো, স্বর্গটা কেমন?
– কে বলল, আমি স্বর্গে আছি?

এই জন্যেই এটা নরক

Bookmark

Share

খুব দামি একটা জাগুয়ার স্পোর্টস কার নিয়ে এক লোক স্বর্গের দরজায় গিয়ে হাজির।
– কী ব্যাপার? স্বর্গের দ্বাররক্ষী তাকে আটকালো।
– দেখছ না কী দামি গাড়ি? এই গাড়ি স্বর্গের সড়কে চালিয়ে দেখতে চাই একবার।
– নিয়ম নেই। তুমি নরকে গিয়ে চেষ্টা করে দেখ।
(হতাশ লোকটি এবার গেল নরকের দরজায়। এখানেও দ্বাররক্ষী আটকালো। )
– কী ব্যাপার?
– নরকের রাস্তায় এই গাড়িটা চালাতে চাই।
– সম্ভব নয়।
– কেন?
– কারণ নরকে কোন সড়ক নেই।
– কেন?
– এজন্যই এটা নরক!

বিজ্ঞানীরা স্বর্গে

Bookmark

Share

আপনি কি জানেন, গবেষক/বিজ্ঞানীরা স্বর্গে গেলে প্রথমে কী করবে?

তারা আত্মহত্যা করে পৃথিবীতে ফিরে আসতে চাইবে। কারণ, স্বর্গে কোন কিছু পাওয়ার জন্য গবেষণা করতে হবে না। সেখানে যা চাওয়া হবে তাই পাওয়া যাবে।