Archives for অফিস আদালত

হাসান সাহেব

Bookmark

Share

অফিস থেকে ফিরে হাসান সাহেব তার সাত ছেলে মেয়েকে কাছে ডাকলেন। বললেন, গত এক সপ্তাহ কে সবচেয়ে বেশি বাধ্য হয়ে থেকেছে? মা যা বলেছেন তাই বিনা বাক্য ব্যয়ে পালন করেছ? তার জন্য পুরস্কার আছে।
এক ছেলেঃ তা হলে তো আব্বু পুরস্কারটা তুমিই পাচ্ছ।

অফিস থেকে ফিরে

Bookmark

Share

অফিস থেকে ফিরে হাসান সাহেব তার সাত ছেলেমেয়েকে কাছে ডাকলেন। বললেন, গত এক সপ্তাহে কে সবচেয়ে বেশি বাধ্য হয়ে থেকেছে? মা যা বলেছেন তাই বিনা বাক্য ব্যয়ে পালন করেছে? তার জন্য পুরস্কার আছে।
এক ছেলেঃ তা হলে তো আব্বু পুরস্কার টা তো তুমিই পাচ্ছ।

দুই ইহুদি ব্যবসায়ী

Bookmark

Share

দুই ইহুদি ব্যবসায়ী নিজেদের মধ্যে আলাপ করছে।
ওয়েনারঃ বছর দুই আগে আমার রেস্টুরন্টে আগুন লেগে সব ছাই হয়ে যায়। অগ্নী বীমা করা ছিল বলে কোন রকমে পুষিয়ে গেছে। তা না হলে আমি পথের ভিখারি হয়ে যেতাম।

লোয়েবঃ সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাসে সমুদ্র তীরের সমস্ত ভুসম্পত্তি আমারও নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। বীমাই আমাকে বাঁচিয়েছে। তা না হলে আমার অবস্থাও খুব খারাপ হত।

ওয়েনারঃ আচ্ছা ভাই, তুমি সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাসের ব্যবস্থা কীভাবে করেছিলে?

এক অফিসে হঠাৎ

Bookmark

Share

এক অফিসে হঠাৎ করে একটা ফোন এল।
– হ্যালো, আপনার বসকে দিন।
– দিচ্ছি, কিন্তু আপনি কে?
– আমাকে চিনবেন না। আমি অনেক উপরের লেভেলের লোক।
– কিছু মনে করবেন না। আপনি কি একজন মন্ত্রী?
– না, আমি তার চেয়েও ওপরের!
– আপনি কি প্রধানমন্ত্রীর কোন কাছের লোক?
– না, না আমি তার চেয়েও ওপরের।
– আপনি কি প্রধানমন্ত্রী?
– আরে না, আমি তার চেয়েও ওপরের, আপনার বসকে দিন। অফিসের লোকটি ধাঁধায় পড়ে গেল। তাহলে ফোনটি দেশের বাইরে থেকে এল?
– হ্যালো, আপনি কি আন্তর্যাতিক পর্যায়ের কোন বিখ্যাত ব্যক্তি?
– না, আমি তার চেয়েও ওপরের।
– কিছু মনে করবেন না। আপনি কি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট?
– না, আমি তার চেয়েও বড়।
– তারচে’ও বড়! তা হলে কি আপনি ঈশ্বর?
– না, আমি ঈশ্বরের চেয়েও বড়।
– কী বললেন, ঈশ্বরের চে’ বড় তো কেউ না !
– হ্যাঁ, আমি সেই ‘কেউ না’ ।

ম্যানেজারকে বিদায়

Bookmark

Share

– বুঝলি, আজ আমার ম্যানেজারটাকে বিদায় করে দিলাম। ব্যাটা আবার একটা সার্টিফিকেট চায়, শেষে দিলাম একটা। তবে লিখে দিয়েছি লোকটা অলস, মিথ্যাবাদী, চোর, ঝগড়াটে…
– আহা দু-একটা ভাল কথাও লিখতি।
– তাও লিখেছি….সে ভাল খেতে পারে, অফিসের টেবিলে ভাল ঘুমাতে পারে…

রেশনের দোকান

Bookmark

Share

রেশনের দোকানের সামনে বিরাট একটা লাইন। কোনো জিনিসই পাওয়া যাচ্ছে না। এক লোক লাইন থেকে বেরিয়ে এসে বলল, শালা, রেশন অফিসারকে আমি খুন করব।
– কি ভাই, খুন করতে পারলেন?
– না ভাই।
– কেন?
– ওখানে এর চেয়েও বড় লাইন!

আমার বস

Bookmark

Share

আমার বস এতটাই অজনপ্রিয় যে ওর ছায়াটা পর্যন্ত ওকে অনুসরণ করে না…………..

অফিসে সাইনবোর্ড

Bookmark

Share

এক বস তার মোটো হিসেবে অফিসের সব ঘরে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিল যাতে লেখা ছিল – ‘চিন্তা কর’; এক সপ্তাহের মধ্যেই সবাই চিন্তাভাবনা করে ঐ অফিসের চাকরি ছেড়ে আরো ভাল অফিসে চলে গেল।

চাকরি খুইয়েছে যুবক

Bookmark

Share

সদ্য চাকরি খেয়েছে এক যুবক। বন্ধুর বাড়িতে এসে সে তার দুঃখের কথা জানাচ্ছিল।
– ফোরম্যান তোমাকে বরখাস্ত করল কেন?
– তুমি তো জান, ফোরম্যানরা কী হয়। নিজেরা কাজ না করে দু’ পকেটে হাত ঢুকিয়ে অন্যদের কাজকর্ম তদারকি করে।
– তা জানি। কিন্তু তিনি তোমাকে তাড়ালেন কেন?
– আর কেন, ঈর্ষায়। আসলে সব কর্মী আমাকেই ফোরম্যান ভেবে বসেছিল।

ড্রাইভার চাই

Bookmark

Share

‘ড্রাইভার চাই’ এই মর্মে কাগজে বিজ্ঞাপণ দিলেন এক ভদ্রলোক। চাকরিপ্রার্থীরা এল। ভদ্রলোক প্রথম প্রার্থীকে প্রশ্ন করলেন, একটা গর্তের কতটা কাছ দিয়ে তুমি গাড়ি চালাতে পারবে?
– ত্রিশ সেন্টিমিটার।
অন্যান্য প্রার্থীকেও একই প্রশ্ন করলেন। উত্তরে ত্রিশ থেকে আট সেন্টিমিটার অবধি প্রার্থীরা নামল। কেবল একজন জানাল যে, সে চেষ্টা করবে অন্তত ফুট দুয়েক দূর থেকে চালাবার।
ভদ্রলোক বললেন, এতক্ষণে ঠিক লোকটি পাওয়া গেল।

Page 1 of 10:1 2 3 4 »Last »