Archives for গৃহকর্তা অতিথি ও ভাড়াটিয়া

ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি

Bookmark

Share

গৃহকর্তাঃ আচ্ছা মাস্টার সাহেব, খোকা ইতিহাসে কেমন করছে? আমি আবার ইতিহাসে কোনদিনই ভাল করতে পারতাম না।
গৃহশিক্ষকঃ ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটছে।

গৃহকর্ত্রী ও ফকির

Bookmark

Share

গৃহকর্ত্রীঃ এ কী! তোমাকে না গতকালও একবার খেতে দিলাম!
ফকিরঃ কী করব আম্মা। ডাক্তার বলেছে যে খাবার খেয়ে হজম করতে পারবে সে খাবারই খাবে।

————————————————————————

[জোকসটি সংগৃহীত। আমার বোধগম্য হয় নি। বুঝে থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন প্লিজ  ]

 

আমি বুড়ির বাড়িওয়ালা

Bookmark

Share

কলিং বেলের শব্দ শুনে দরজা খুলে জাহানারা দেখলেন এক ভদ্রলোক দাঁড়িয়ে আছেন।
– কী ব্যাপার?
– অসহায় এক বুড়ির জন্য সাহায্য চাইছি। বৃদ্ধার জামা-কাপড় কিচ্ছু নেই। মাস চারেকের বাড়ি ভাড়াও বাকি পড়েছে। এই প্রচণ্ড শীতটা হয়তো রাস্তাতেই তাকে কাটাতে হবে।
– বুড়ির সৌভাগ্য সে আপনার মতো একজন ভদ্রলোক পেয়েছেন। তা আপনি কে?
– আমি? আমি বুড়ির বারিওয়ালা।

বাড়িওয়ালা ও নতুন ভাড়াটে

Bookmark

Share

বাড়িওয়ালা নতুন ভাড়াটাকে বাড়ি দেখিয়ে বললেন, চমৎকার বাড়ি আমার। দোষটা হল কেবল রেল লাইনের পাশে। তবে চিন্তা নেই, প্রথম দু’-তিন ঘুমাতে একটু অসুবিধা হবে, তারপর অবশ্য অভ্যাস হয়ে যাবে।
ভাড়াটে বলল, প্রথম দু’-তিন রাত তো, কোনো অসুবিধা হবে না আমার। দু’-তিনটা রাত আমি আমার বন্ধুর বাসায় কাটিয়ে দিতে পারব।

ইঁদুর আর আরশোলা

Bookmark

Share

– দোস্ত, আমাকে গোটা পঞ্চাশেক ইঁদুর আর হাজারখানেক আরশোলা দিতে পারবি?
– সে কি, এত ইঁদুর আর আরশোলা নিয়ে তুই কী করবি?
– আর বলিস না! বাড়ি ছেড়ে দিচ্ছি শুনে বাড়িওয়ালা বলল, ভাড়া নেওয়ার সময়ে যেমনটি ছিল ঠিক তেমনটি রেখে যেতে হবে।

প্রেমের পাঠ

Bookmark

Share

গৃহকর্তাঃ এক হাজার মাইনে দিয়ে আপনাকে রেখেছি আমার মেয়েকে ইংরেজি অংক এসব শেখানোর জন্য। প্রেমের পাঠ দেওয়ার জন্য নয়।
গৃহশিক্ষকঃ শেষেরটা আমি এমনি এমনি শেখাচ্ছি। এর জন্য কোনো বাড়তি টাকা দিতে হবে না।

ব্যাচেলর যুবকের বাড়ি ভাড়া

Bookmark

Share

বাড়ি ভাড়া দিতে এক ব্যাচেলর যুবক এক বাড়িতে গেল।
বাড়িত মালিক দরজা খুলে বলল, কী চাই?
– বাড়ি ভাড়া নিতে এসেছি।
– আপনি কি বিবাহিত?
– না।
– তাহলে যান, ব্যাচেলরদের কাছে আমি বাড়ি ভাড়া দিই না।
মালিক মুখের উপর দরজা বন্ধ করে দিলেন। ব্যাচেলর যুবক আবার দরজায় নক করল। ভদ্রলোক দরজা খুলে বললেন, আবার কী?
– শোনেন, একটা পরামর্শ দিয়ে যাই। ব্যাচেলররা যখন এতই খারাপ তখন কোনো ব্যাচেলরের কাছে দয়া করে আপনার মেয়ের বিয়ে দিবেন না যেন।

গানের গলা

Bookmark

Share

অতিথিঃ তোমার গানের গলা ভাল নয়, তবুও তবুও তুমি গান গাও কেন?

রিনাঃ আমিতো গান গাই না। তবে মা যখন বাড়ি থেকে অতিথি জাড়াতে চান তখন আমাকে গাইতে হয়।

বাড়ির লোকের চিন্তা

Bookmark

Share

এক অতিথিকে গৃহকর্তা বললেন, আপনি তো একমাস হয় আমাদের এখানে রয়েছেন। তা আপনার বাড়িত লোকেরা চিন্তা করবে না?

অতিথি বললেন, তা আবার করবে না, খুব করবে! আমি আজই চিঠি দিয়ে ওদেরকে এখানে আনিয়ে নিচ্ছি।