Archives for সামরিক কৌতুক

সাহসিকতা

Bookmark

Share

একজন সৈনিককে জিঞ্জাসা করা হল যে, সে কেমন করে সাহসিকতার বিষয়ে বিশেষ মেডেলটি পেল।
সৈনিক বললেন যে, একটি দুঃসাহসিক কাজের জন্য আমাদের ডাকা হয়। কাজটা এত দুঃসাহসিক ছিল যে সেখানে কারো জ্যান্ত অবস্থায় ফেরার সম্ভাবনা খুবই কম ছিল। আমাদের বলা হয়েছিল যে যারা কাজটি করতে চাও দু’কদম সামনে এগিয়ে এস।

আপনি কি সম্মুখে দাঁড়িয়েছিলেন?

সৈনিকঃ না, সবাই ভয়ে দু’কদম পিছনে গিয়ে দাঁড়িয়েছিল।

পাশাপাশি দুটি রাজ্য

Bookmark

Share

পাশাপাশি দুটি রাজ্যের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে যুদ্ধ চলার পর এক রাজ্যের রাজা সন্ধি-প্রস্তাব পাঠালেন অন্য রাজ্যের রাজার কাছে। সন্ধি-প্রস্তাব নিয়ে রওনা হল অল্পবয়সী এক দূত। সন্ধি-প্রস্তাবদি রাজার হাতে দিতেই রাজা বললেন, তোমাদের দেশে কি পুরুষ মানুষের এত অভাব যে, এমন একজন দূত সাজিয়ে পাঠানো হয়েছে যার এখনো দাড়িই গজায় নি।

দূতটি বলল, আমাদের মহারাজ যদি জানতেন যে, দাড়িকেই আপনি পৌরুষের একমাত্র লক্ষণ বলে ভাবেন, তবে তিনি অবশ্যই আমাকে না পাঠিয়ে একটা প্রমাণ সাইজের রামছাগল পাঠাতেন।

একটি মেয়ের ডায়েরী

Bookmark

Share

একটি মেয়ের ডায়েরীর পাতাঃ
সোমবারঃ আজ আমাদের জাহাজ বার শ’ যাত্রী নিয়ে যাত্রী শুরু করল।
মঙ্গলবারঃ জাহাজের ক্যাপ্টেনের সঙ্গে দেখা হল। উনি আমাকে আগামীকাল ডিনারে আমন্ত্রন করেছেন।
বুধবারঃ আজ ক্যাপ্টেনের সঙ্গে দিনার খেলাম। উনি আমাকে খুব বাজে একা প্রস্তাব দিয়েছেন। আমি সরাসরি না করে দিয়েছি।
বৃহস্পতিবারঃ আজ ক্যাপ্টেন আমাকে বলেছেন যদি ওর প্রস্তাবে রাজী না হই তাহলে বারশ’ যাত্রীসহ জাহাজ ডুবিয়ে দিবেন। বলেছেন বারশ’ যাত্রীর প্রাণ এখন আমার হাতে।
শুক্রবারঃ আজ আমি বার শ’ যাত্রীর প্রাণ বাঁচালাম।

সেনাবাহিনীতে যোগ

Bookmark

Share

সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার জন্য ডাক পড়েছে জামিলের। তার স্বাস্থ্য ভালো, বয়সও পঁচিশের কম। কিন্তু জামিল সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে চায় না। তাকে যখন চোখ পরীক্ষার জন্য নিয়ে গেল তখন সে স্থির করল, চোখের ডাক্তারকে ঠকাতে হবে, নইলে চলবে না।
ডাক্তার প্রথমেই বড় দেয়ালে টাঙানো একটা চার্ট দেখিয়ে বলল, ওপর থেকে অক্ষরগুলো পড়ে যান।
– অক্ষর! অক্ষর তো একটাও চোখে পড়ছে না।
– ওই যে চার্টটা রয়েছে, দেখতে পাচ্ছেন না?
– কই না তো!
– ওই তো দেয়ালেই টাঙানো আছে।
– দেয়াল! দেয়াল কোথায়?

ডাক্তার জামিলকে ‘আপফিট’ লিখে ছেড়ে দিলেন। ঘটনাক্রমে সেদিন সন্ধ্যার শো’তে সিনেমা দেখতে গেলেন সেনাবাহিনীর ডাক্তার। আর তাঁর পাশেই সিট পড়ল জামিলের। ভয়ে কাঠ হয়ে গেল জামিল, যদি চিনতে পারেন, তাহলে তো দফারফা!

ডাক্তার এবার জামিলের দিকে তাকাতেই জামিল বলল, আচ্ছা ভাই, এই বাসটা কি গুলশান যাবে?

 

কাঁচাপাকা চুল

Bookmark

Share

কাঁচাপাকা চুলঅলা এক ভদ্রলোক হন্তদন্ত হয়ে সেনা নিয়োগকর্তা অফিসে ঢুকলেন।
– অনুগ্রহ করে আমার নামটা চাকরির খাতায় লিখুন।
– আপনার বয়স কত?
– বাষট্টি।
– আপনি নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন সৈনিক হিসাবে চাকরি করার জন্য আপনার বয়সটা খুবই বেশি।
– তা অবশ্য ঠিক। তবে আপনাদের কি একজন জেনারেলও দরকার নেই?

রব্বানীর বাবার মৃত্যুসংবাদ

Bookmark

Share

কর্ণেল ডেকে পাঠালেন ক্যাপ্টেনকে।
– শোন, সৈনিক রব্বানীর বাবার মৃত্যু সংবাদ এসেছে। তো খবরটা ওকে সরাসরি না বলে একটু অন্যভাবে জানিও। নইলে খুব বেশি দুঃখ পাবে বেচারা।
– ঠিক আছে, স্যার। সে ব্যবস্থা আমি করব।
সব সৈনিককে ডেকে পাঠালেন ক্যাপ্টেন। সবাই এসে দাঁড়াল সারি বেঁধে। কমান্ডের সুরে তিনি বললেন, যাদের বাবা এখনো জীবিত, তারা এক কদম এগিয়ে এসে দাঁড়াও।
সবাই এক কদম সামনে এগিয়ে এল। সাথে রব্বানীও এগিয়ে এল। ক্যাপ্টেন চিৎকার করে বললেন, তুমি কোথায় চললে, রব্বানী? যেখানে ছিলে সেখানেই দাঁড়িয়ে থাক।

ওটা নৌবাহিনীর ব্যাপার

Bookmark

Share

নতুন সৈন্যদের ক্লাস চলছে। মাধ্যাকর্ষণ শক্তি বিষয়ে পড়াচ্ছেন মেজর।
– এক টুকরো পাথরকে যত শক্তি দিয়েই উপরে ছুঁড়ে দাও না কেন, মাধ্যাকর্ষণ শক্তির প্রভাবে তা কিছুক্ষণের মধ্যেই মাটিতে এসে পড়বে।
– কিন্তু পাথরটি যদি মাটিতে না পড়ে পানিতে গিয়ে পড়ে, স্যার?
– তা আমাদের না জানলেও চলবে, ওটা নৌবাহিনীর ব্যাপার, আমাদের নয়।

একই রকম জোড়া

Bookmark

Share

বিগ্রেডিয়ার অফিসে এসেছেন। তার এক পায়ে লাল রঙের জুতা, অন্য পায়ে কালো রঙের। দেখে একান্ত অনুগত এক জুনিয়র অফিসার বললেন, স্যার, আপনি বরং ঘরে গিয়ে জুতো জোড়া বদলে আসুন।
বিগ্রেডিয়ারঃ গিয়েছিলাম একবার। কিন্তু বদলে লাভটা হবে কী, ওখানেও দেখি এ রকমই এক জোড়া পড়ে আছে।

তরুণ সৈনিক

Bookmark

Share

তরুণ সৈনিক প্রথম ছুটি কাটাতে বাবা-মা’র কাছে এল। জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে আছে সে। মনোযোগ দিয়ে দেখছে, চার জন মেয়ে হেঁটে যাচ্ছে গল্প করতে করতে। বাবা- মা ভাবলেন, ছেলে বড় হয়েছে। এ বয়সে মেয়েদের দিকে তাকাবে, সেটাই তো স্বাভাবিক।

মেয়েগুলো দৃষ্টির বাইরে চলে গেলে সৈনিকটি বাবা-মা’র দিকে ঘুরে বলল, চারজনের মাঝে একজনের কদম মিলছে না।

বিয়ের আগে ও পরে

Bookmark

Share

– বিয়ের পর হঠাত সেনাবাহিনীতে যোগ দিলি যে!
– বিয়ের আগে সৈনিক হতে চাইতাম, যুদ্ধ হানাহানি তখন ভালো লাগত।
– বিয়ের পর কী ভালো লাগে?
– এখন আমার চোখ খুলেছে, এখন আমি শান্তি চাই, তাই ঘর ছেড়ে সৈন্যদলে নাম লিখিয়েছি।

Page 1 of 2:1 2 »