Archives for পারিবারিক

বৃষ্টি হলেই

Bookmark

Share

– কিরে টুনু, তুই দিনকে দিন শুকিয়ে যাচ্ছিস কেন?
– চিন্তা কোরো না আম্মু, বৃষ্টি হলেই আবার ভিজে যাব।

মামা-ভাগ্নে

Bookmark

Share

মামা-ভাগ্নে রাস্তার পাশে চটপটি খেয়ে উঠে দাঁড়াল।
– মামা, মাছি খেতে কেমন লাগে?
– কী করে বলব? আমি তো মাছি খেয়ে দেখি নি।
– কেন, তোমার চটপটিতে একটা ছিল তো!

সাতজনকে দশটি আলু

Bookmark

Share

চাচাঃ টুকুন, তোমাকে যদি দশটি আলু সাত জনকে সমান ভাগে ভাগ করে দিতে বলা হয়, কীভাবে ভাগ করবে?
টুকুনঃ এ আর এমন কী, আলুগুলো সেদ্ধ করে ভর্তা বানিয়ে সাত ভাগ করে দেব।

রিকশা ডেকে দেব?

Bookmark

Share

বৃদ্ধা দাদিঃ আল্লাহ্! আর পারি না। কবে যে তোমার কাছে যেতে পারব।
নাতিঃ মা বাড়ি নেই, এই ফাঁকে চলে যাও। একটা রিকশা ডেকে দেব?

রেডিওতে বাজানোর সুযোগ

Bookmark

Share

বড় ভাইকে বেহালা বাজিয়ে শোনাচ্ছিল শোভন।
– কেমন লাগল?
– তোকে রেডিও তে বাজানোর সুযোগ দেওয়া উচিত।
– তার মানে বলছ ভালো বাজিয়েছি?
– না, রেডিওতে বাজালে আমি ওটা বন্ধ করে দিতে পারতাম, যেটা এখন পারছি না।

বৃদ্ধ ও তার নাতি

Bookmark

Share

এক বৃদ্ধকে তার নাতি প্রশ্ন করল, দাদু, অনেক দিন তো বাঁচলেন, অনেক কিছু দেখলেন, করলে, শিখলেন। এখন আপনাকে যদি শুরু থেকে জীবন শুরু করার সুযোগ দেওয়া হয় তা হলে এ যাবৎ যে ভুলগুলো করেছেন, তা কি আবার করবেন?
দাদু বললেন, নিশ্চয়ই, তবে সে ভুলগুলোই আরো আগে থেকে শুরু করব।

মেয়ের গান

Bookmark

Share

মেয়ের বাবাঃ এইমাত্র মেয়েটার গান যে শুনলেন, এর জন্যে আমার বহু টাকা ব্যয় করতে হয়েছে।
পাত্রপক্ষঃ হ্যাঁ, তা হবেই। প্রতিবেশীর সঙ্গে নির্ঘার মামলা লড়তে হয়েছে!

মশার ভয়ে

Bookmark

Share

ভাগ্নেঃ আচ্ছা মামা, বলতো সবচেয়ে সাহসী কোন প্রাণী?
মামাঃ কেন, মানুষ।
ভাগ্নেঃ দূর মামা, তুমি যে কি বল না! আরে মানুষ যদি এত সাহসী হত তাহলে সামান্য মশার ভয়ে কি মশারির ভেতর লুকাত?

আরেকজন কে শুনি?

Bookmark

Share

শ্বাশুড়িদের নিয়ে একটি গল্প প্রচলিত আছে জাপানে। ছেলের বউকে গঞ্জনা দেয় শ্বাশুড়ি। এক সন্ধ্যায় পাড়ার এক সভা থেকে ছেলের বউ বাসায় ফিরলে শ্বাশুড়ি ক্ষিপ্ত হয়ে জানতে চাইলেন, “এত দেরি হল কেন? কিসের মিটিং ছিল তোমাদের?”  একটু ইতস্তত করে ছেলের বউ জবাব দিল, “পাড়ার বউয়েরা সভা ডেকে আলোচনা করছিল পাড়ার দুই শাশুড়ির অত্যাচার কি করে বন্ধ করা যায়।” এক মূহুর্ত কি যেন চিন্তা করলেন শ্বাশুড়ি। তারপর চোখ পাকিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, “আর একজন কে শুনি?”

মাঝখানের অর্ধেক

Bookmark

Share

বাড়িতে দুই ছেলে। ছোট বড় দুজনেই এক বিছানায় শোয়। বড় ভাইয়ের বয়স প্রায় এগার আর ছোটটার বয়স পাঁচ। একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে মায়ের কাছে ছোট ছেলে নালিশ করল, “মা, ভাইয়া আমাকে শুতে দেয় না। অর্ধেক বিছানা জুড়ে শুয়ে থাকে।”

মাঃ তা তো থাকবেই বাবদা! বাকি অর্ধেকে তুমি ঘুমাবে।

ছোট ছেলেঃ কিন্তু ভাইয়া যে মাঝখানের অর্ধেক নিয়ে শোয়।

Page 1 of 2:1 2 »