স্বামী-স্ত্রীর মাঝে দীর্ঘদিন ধরে কথা বন্ধ। বিছানাও আলাদা।
এক দুপুরে হঠাৎ স্বামী অফিস থেকে ফিরে দেখল স্ত্রী শুয়ে আছে এক যুবকের সাথে।
স্বামী রেগে মেগে গালিগালাজ করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যাচ্ছিল। স্ত্রী কৈফিয়ত দিল-
– আগে আমার কথাটা শোনো। তার পর যা ইচ্ছা হয় করো।
– শোনার দরকার নেই। যা দেখেছি, তাই যথেষ্ট।
– শোনই না। আমি দুপুরে খেয়ে একটু শুতে যাচ্ছি, এমন সময় এক লোক ছেঁড়া জামাকাপড় পড়ে এক টুকরো রুটি চাইল। তাকে ঘরে বসে খাওয়াতে গিয়ে দেখলাম, তার পায়ের জুতো ছেঁড়া। তোমার ব্যবহার করা পুরনো জুতা থেকে এক জোড়া জুতা তাকে দিলাম। জুতো জোড়াটা দেওয়ার পর দেখলাম, তোমার জুতোর সঙ্গে ওর প্যান্টটা ঠিক মানাচ্ছে না। তখন তোমার পুরনো প্যান্ট তাকে দিলাম।  তারপর দেখলাম, প্যান্ট জুতো মানালেও ওর ছেঁড়া শার্টটার সঙ্গে সবকিছু বেমানান দেখাচ্ছে। তাই তোমার সেই কবেকার কেনা একটা শার্ট ওকে পরতে দিলাম।
– কিন্তু ও তোমার বিছানায় কেন?
– সে কথাই তো বলছি। জামা জুতো প্যান্ট পরার পর লোকটি আবদার করল- তোমার স্বামী দীর্ঘদিন ব্যবহার করে না এমন আর কী আছে, দাও না!